Poco X2 In-Depth Review – Legacy Continued?

0

আমরা আজকে আলোচনা করবো “Poco F1” এর মত “Poco X2” ও কি কম দামে ভাল জিনিস দিচ্ছে কিনা। এই ফোনটি বেশ কিছু দিন ব্যবহার করার পরে আমাদের যে অভিজ্ঞতা হয়েছে সেটা আপনাদের সাথে শেয়ার করবো।

স্পেসিফিকেশন (Specification):

  • Display: 6.67 Inch, Full HD+ 1080 x 2400 pixels (386 ppi).
  • RAM & ROM: 8GB, 265GB.
  • Processor: Octa core, up to 2.2 GHz.
  • Rear Camera: Quad 64+8+2+2 Megapixel.
  • Front Camera: Dual 20+2 Megapixel.
  • Battery: Lithium-polymer 4500 mAh (non-removable).
  • Other: Android 10 (MIUI 11), Cam Fingerprint Scanner.

প্রথমেই ভাবার বিষয় “Poco F1” থেকে “Poco X2” কেন হয়েছে। আবার অনেকেই বলছে “Relme X2” এর সাথে মিল রাখার জন্য Poco সরাসরি নামটাও X2 দিয়েছে। সম্ভবত এটা হতেও পারে, কারণ “Poco X2” আর “Relme X2” এর ফিচার অনেকটাই মিল রয়েছে। তবে এই “Poco X2” হচ্ছে “Redmi K30”এর similar specification এর ফোন এবং Redmi K30 ইতিমধ্যেই India তে লঞ্চ করা হয়েছে। সুতরাং কনফিগারেশন অনুযায়ী এই দুটো মোটামুটি একই ফোন।বাংলাদেশে এর মূল্য হচ্ছে এখন Unofficial“২৬,০০০ টাকা”। কিন্তু এটা কিছু দিন পরে হয়ত কমে যাবে। ইন্ডিয়াতে এর মূল্য হচ্ছে “১৬,০০০ রুপি”। ইন্ডিয়ার দামের তুলনায় বাংলাদেশে কিছুদিন পরে হয়ত দাম কিছুটা কমতে পারে।

ডিজাইন এবং বিল্ড (Design & Build): 

আমরা প্রথমেই আলোচনা করব এর ডিজাইন নিয়ে। আমি আগেই বলেছিলাম “Redme K30” এর মতো এই ফোনটি, তাই ফুল ডিজাইনও হচ্ছে K30 এর মতো।  এটা হচ্ছে Gorilla Glass 5 front & back, aluminum frame এর একটি ফোন। এটার পিছনের দিকে রয়েছে অনেক বড় একটি ক্যামেরা বাম্পার, তার চারপাশে একটি রাউন্ড সার্কেল দেয়া হয়েছে। এটা কিন্তু একদম প্লেন। দেখতে উঁচু মনে হলেও, আসলে উঁচু নয়।

এই ফোনটির ৩-টি কালার আছে। 

  • Atlantis Blue.
  • Matrix Purple
  • Phoenix Red

আমাদের কাছে আছে “Matrix Purple” কালারের ফোনটি।

বাটন এবং পোর্টস (Buttons and Ports):

ফোনটির উপরের দিকে আছে একটি নয়েজ ক্যান্সেলেশন মাইক্রোফোন। নিচের দিকে আছে USB Type C-Port। একটি বটম ফায়ারিং স্পিকার। প্রাইমারি Microphone এবং 3.5 mm অডিও জ্যাক। বাম পাশে আছে Hybrid Dual Nano SIM Slot এটাতে আপনারা চাইলে এক সাথে একটি সিম কার্ড, একটি মেমোরি কার্ড ব্যবহার করতে পারেন। আথবা ২-টা সিম কার্ড ব্যবহার করতে পারেন। আর ফোনটির ডান পাশে আছে ভলিওম বাটন, তার ঠিক নীচেই আছে পাওয়ার বাটন।

ডিসপ্লে (Display):

এই ফোনটির সামনের দিকে আছে 6.67 Inch, Full HD+ 1080 x 2400 pixels এর IPS LCD Touchscreen। ডিসপ্লেলেতে পর্যাপ্ত পরিমানে ব্রাইটনেস রয়েছে। Features: Multitouch, 120Hz, HDR10, 500 nits. এটাতে ভিডিও দেখার অভিজ্ঞতা অনেক ভালো ছিল, কালার নেগেটিভিটি একদমই ছিল না।

পারফর্মেন্স (Performance):

এই ফোনটিতে 265-GB অভ্যন্তরীণ স্টোরেজ এবং 8-GB র‍্যামের ভ্যারিয়েন্টে আপনারা পাবেন। এটাতে একটি মিডরেঞ্জের প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে, সেই হিসেবে পারফমেন্সের দিকে থেকে “Poco F1” এর থেকে কিছুটা পিছিয়ে থাকলেও ডিজাইনের দিক থেকে অনেকটা এগিয়ে। এবং এই প্রসেসর দিয়ে ডে-টু-ডে কাজ গুলো করতে কোন প্রকার সমস্যা আমরা পাইনি। সব কিছু ছিল Smoothly।

এই ফোনটি গেমিং এর ক্ষেত্রেও ভালো। এটাতে আমরা ২-টা গেমস ইন্সটল করে দেখে ছিলাম, কোন সমস্যা ছিল না। PUBG Mobile ও খেলতে পারবেন। PUBG তে বাই ডিফল্ট High Graphics সাজেস্ট করে।  কোন ধরনের ল্যাগ হয়নি। Smoothly চালিয়ে যেতে পারবেন। এর ডিসপ্লে বড় থাকার কারণে গেমস খেলেও অনেক ভাল গেমিং এক্সপিরিয়েন্স পাবেন। 

পাওয়ার বাটনে ক্যাম ফিঙ্গারপিন্ট স্ক্যানার ব্যবহার করা হয়েছে যার স্পীড ছিল দুর্দান্ত।এটাতে ফেস-আনলক ব্যবহার করা হয়েছে সেটার স্পীড ও বেশ ভাল। তবে Low লাইটে হালকা সমস্যা হতে পারে।

সফটওয়্যার এবং ইউআই (Software and UI):

এই ফোনটির সফটওয়্যার হিসেবে দেওয়া হয়েছে Android 10 (MIUI 11), এর ভার্সনে এড খুব কম আসে। সেই সাথে এর অ্যাপ ড্রয়ার আছে। অন্যান্য কাজ গুলো এই ফোন থেকে বেশ Smoothly করা যাবে। এটি দিয়ে ব্রাউজিং কিংবা ডে-টু-ডে সকল কাজ চালিয়ে নেয়া যাবে খুব Smoothly।

ক্যামেরা (Camera):

এই ফোনটিতে পিছনের দিকে চারটি ক্যামেরা রয়েছে, Quad 64+8+2+2 Megapixel, এই চারটি ক্যামেরা দিয়ে আমরা ছবি তুলে দেখেছি বেশ পারফর্ম করেছে। এবং পিছনের ক্যামেরা দিয়ে Ultra HD 4K (2160p), 30FPS-এ ভিডিও রেকর্ড করতে পারবেন। নিচে কিছু ছবির স্যাম্পল দেওয়া হল।

সামনে দুটো ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়েছে 20+2 Megapixel, সামনের ক্যামেরার ছবি গুলোও বেশ ভালো লেগেছে। এবং সামনের ক্যামেরা দিয়ে Full HD (1080p) 30FPS-এ ভিডিও রেকর্ড করতে পারবেন। নিচে কিছু ছবির স্যাম্পল দেওয়া হল।

ব্যাটারি (Battery):

এটাতে 4,500 mAh ব্যাটারি ব্যাবহার করা হয়েছে। এর বক্সে একটি 27W চার্জার দেয়া হয়েছে যেটা একটা ফাস্ট চার্জার। এই চার্জার থেকে ফুল চার্জ হতে ৭০-৭৫ মিনিট লাগতে পারে।

সবকিছু মিলিয়ে আমাদের মনে হয় এই ফোনটি অনেক ভালো এবং মিড বাজেটে সবার জন্য এই ফোনটি সাজেস্টেড থাকতে পারে। এই ছিল আমাদের আজকের “Poco X2” রিভিউ। আশা করি আমাদের রিভিউ-টি ভালো লেগেছে এবং ভালো লেগে থাকলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানান আপনার মতামত এবং অবশ্যই এটি শেয়ার করতে ভুলবেন না। ধন্যবাদ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here